June 21, 2024, 7:29 am

জ্বালানি সাশ্রয়ে পদক্ষেপ

জ্বালানি সাশ্রয়ে ”কার হলিডে” এর কথা ভাবছে সরকার

Spread the love

জ্বালানি সাশ্রয়ে আরও কিছু পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছে সরকার। এর মধ্যে ‘কার হলিডে’ এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সপ্তাহে ৩ দিন বন্ধ রাখার মতো পদক্ষেপও থাকতে পারে। এ ছাড়া রাজধানীসহ সারাদেশে বড় বড় শপিংমল পালাক্রমে (বেঁধে দেওয়া সময় অনুযায়ী) খোলা রাখার কথাও চিন্তা করছে সরকার।

বর্তমানে রাত ৮টা পর্যন্ত মার্কেট খোলা রাখার অনুমতি দিয়েছে সরকার। অন্যদিকে অকটেন-পেট্রলের দাম আবার বাড়ানোর কথাও ভাবা হচ্ছে। আগামী সপ্তাহেই এ ব্যাপারে সরকারি ঘোষণা আসতে পারে। এর মাধ্যমে জ্বালানি সাশ্রয়ের পাশাপাশি ভর্তুকি কমিয়ে আনতে চায় সরকার।

জ্বালানি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, তেলভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো বন্ধ রাখার মাধ্যমে সরকারের প্রত্যাশিত সাশ্রয় হচ্ছে না। বিপিসি থেকে জ্বালানি বিভাগকে জানানো হয়েছে, তেলভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো সাশ্রয়ের মাধ্যমে মোট জ্বালানি তেল ব্যবহারের মাত্র সাত থেকে আট শতাংশ জ্বালানি সাশ্রয় হয়। দেশে যে পরিমাণ জ্বালানি তেল ব্যবহার হয়, বিশেষ করে ডিজেল ব্যবহার হয়, তার ৯০ শতাংশই ব্যবহার হয় পরিবহন খাতে। ফলে সরকার পরিবহন খাতে ব্যবহৃত জ্বালানি তেল কমিয়ে আনার জন্য বেশ কিছু কঠিন পদক্ষেপ গ্রহণ করতে যাচ্ছে।

জ্বালানি বিভাগের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বলেছেন, সরকার আপাতত অকটেন এবং পেট্রলের দাম একটু বেশি পরিমাণে বাড়াতে চায়। অর্থাৎ বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন (বিপিসি) বিদেশ থেকে যে দামে অকটেন আমদানি করে, দেশের বাজারে তার কাছাকাছি মূল্য নির্ধারণ করতে চায় সরকার। এতে ভর্তুকির পরিমাণ কমে আসবে।

তিনি বলেন, অকটেন মূলত ধনীরা ব্যবহার করে। ব্যক্তিগত গাড়ি, মোটরসাইকেলসহ দামি গাড়িতেও অকটেন ব্যবহার হয়। ফলে অকটেন এবং পেট্রলের দাম বাড়ানো হতে পারে আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে। এ ছাড়া সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের গাড়িতে ২০ শতাংশ জ্বালানির ব্যবহার কমানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, ডিজেল যেহেতু কৃষি সেচ কাজ এবং সাধারণ মানুষ বেশি ব্যবহার করে, ফলে আপাতত ডিজেলের দাম নাও বাড়তে পারে। তবে ডিজেলের দামও বাড়বে আরও কিছুদিন আন্তর্জাতিক বাজার বিশ্লেষণের পর।

এদিকে জ্বালানি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, পরিবহন খাতে জ্বালানি তেলের ব্যবহার কমিয়ে আনতে সরকার বেশ কিছু বড় সিদ্ধান্ত নিতে পারে। যার মধ্যে রয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সপ্তাহে তিন দিন বন্ধ রাখা। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের আসা-যাওয়ায় ব্যক্তিগত গাড়ির সর্বোচ্চ ব্যবহারও নিশ্চিত করতে চায় সরকার। সংশ্লিষ্টরা মনে করেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সপ্তাহে তিন দিন বন্ধ রাখলে গাড়িতে জ্বালানি তেলের ব্যবহারও কম হবে। অন্যদিকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের কারণে সুনির্দিষ্ট পরিমাণ বিদ্যুতের সাশ্রয় হবে।

কোভিডের কারণে দীর্ঘ সময় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ছিল। এর মধ্যে আবার বন্ধ রাখলে শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার ক্ষতি হতে পারে কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে জ্বালানি বিভাগের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘আমরা এ ধরনের সুপারিশ করব। বাকিটা শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্তের বিষয়।’ ওই কর্মকর্তা আরও বলেন, ‘সপ্তাহে তিন দিন বাসায়ও শিক্ষার্থীরা পড়াশোনা করতে পারবে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সপ্তাহে তিন দিন বন্ধ রাখলে অনেক বিদ্যুৎ সাশ্রয় হবে। জ্বালানি বিভাগ আরও যেসব বিষয় নিয়ে ভাবছে সেগুলোর মধ্যে রয়েছে বিদেশের আদলে কার হলিডে দেওয়া। অর্থাৎ সপ্তাহে একদিন গাড়ি বন্ধ রাখা।

সেটা কীভাবে নির্ধারণ করা হবে জানতে চাইলে ওই কর্মকর্তা বলেন, অনেক দেশেই একদিন জোড় নাম্বারের গাড়ি চলে, বিজোড় নাম্বার আরেকদিন। সেই রকম চিন্তা থেকেই কার হলিডের বিষয়টি আসছে। এতে প্রতিদিন অর্ধেক গাড়ি রাস্তায় চলা কমে যাবে। তবে পরিবহন সংকটে মানুষের চলাচলে কী ধরনের প্রভাব ফেলতে পারে, সেদিকও ভাবা হচ্ছে।

জ্বালানি বিভাগের ওই কর্মকর্তা আরও বলেন, অপ্রয়োজনে মানুষের চলাফেরা কমিয়ে আনার কথাও ভাবা হচ্ছে। যেটা কয়েক দফা করা হয়েছিল দেশে করোনা ভাইরাসের মহামারী শুরু হওয়ার পর। বিশেষ করে জরুরি কারণ ছাড়া মোটরসাইকেল বা ব্যক্তিগত গাড়ি ব্যবহারে নিরুৎসাহিত করা হবে।

সপ্তাহে একদিন ছুটির দিনে পেট্রল পাম্প বন্ধের সিদ্ধান্ত নিতে পারে সরকার। তবে সপ্তাহে একদিন পেট্রল পাম্প কী প্রক্রিয়ায় বন্ধ রাখা হবে, তার কৌশল নিয়ে ভাবছে জ্বালানি বিভাগ। বিশেষ করে মহাসড়কে যেসব পেট্রল পাম্প আছে, সেগুলো চালু রেখে শহরকেন্দ্রিক পেট্রল পাম্প সপ্তাহে একদিন বন্ধের বিষয়ে ভাবা হচ্ছে। তবে সপ্তাহে একদিন পেট্রল পাম্প বন্ধ রাখলে কী পরিমাণ জ্বালানি সাশ্রয় হবে, সেটা নিয়েও ভাবা হচ্ছে। পরীক্ষামূলক এই সিদ্ধান্ত চালু করা হতে পারে।

বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনের (বিপিসি) চেয়ারম্যান এবিএম আজাদ আমাদের সময়কে বলেন, ‘আমরা কিছু প্রস্তাব সরকারের কাছে দিয়েছি। সেগুলো নিয়ে ভাবা হচ্ছে। একদিন পেট্রল পাম্প বন্ধ রাখলে কী ধরনের ফলাফল আসতে পারে, সেটা নিয়েও বিপিসি কাজ করছে।’

বিপিসি চেয়ারম্যান বলেন, ‘মোট কথা যে কোনোভাবেই হোক জ্বালানি সাশ্রয় করতে হবে। মানুষের কাছে আমার আহ্বান থাকবে নিজ থেকে যতটা পারেন সাশ্রয়ী হোন। এখন একটা সংকটকালীন সময়। সারা বিশ্বে সেটার প্রভাব পড়ছে। বাংলাদেশেও নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। ফলে আমরা সবাই যদি সাশ্রয়ী হই তবে লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী জ্বালানি তেলের ব্যবহার কমিয়ে আনতে পারব।’

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, জ্বালানি বিভাগ থেকে সরকারের উচ্চ পর্যায়ে সুপারিশ করেছে দেশের মার্কেটগুলোকে চালু রাখার ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট সময় বেঁধে দেওয়ার। বিশেষ করে যদি সরকারি অফিস-আদালত সকাল ৯টা থেকে ৩টা পর্যন্ত করা হয়, তবে মার্কেটগুলো যেন সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত নির্ধারণ করে দেওয়া হয়। এ ছাড়া সপ্তাহের একেক দিন একেক এলাকায় মার্কেট বন্ধ রাখার সুপারিশও করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, সরকার আমদানিনির্ভর জ্বালানির কারণে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ নিয়ে যাতে কোনো সংকট না হয়, সেই লক্ষ্যে আগাম সতর্কমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করছে। জ্বালানি সাশ্রয়সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে সাশ্রয়ী ব্যবহারে ইতোমধ্যে একগুচ্ছ কঠিন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। যার মধ্যে রয়েছে আমদানিনির্ভর ডিজেলভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো আপাতত বন্ধ রাখা এবং লিকুইড ন্যাচারাল গ্যাসের (এলএনজির) আমদানি স্পট মার্কেট থেকে না কেনা। বিপিসিকে অন্তত ২০ শতাংশ জ্বালানি তেলের আমদানি কমাতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া এলাকাভিত্তিক এক দেড় ঘণ্টা লোডশেডিংয়ের মাধ্যমে বিদ্যুৎ উৎপাদন ঘাটতি মোকাবিলা করা; ভার্চুয়ালি অফিস করা; অফিসের কর্মঘণ্টা কমিয়ে আনা, এসি ব্যবহারে সংযমী হওয়াসহ নানা ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

এদিকে একাধিক সভায় প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদবিষয়ক উপদেষ্টা তৌফিক-ই-এলাহী চৌধুরী বলেছেন, বিশ্বজুড়ে জ্বালানি সংকট চলছে। সবাইকে ধৈর্য ধরে পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে হবে। এ সংকট কেটে গেলে ভবিষ্যতে আবার সুদিন আসবে।

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, সারাদেশে যে ডিজেল ব্যবহার করা হয়, তার ১০ শতাংশ যায় বিদ্যুৎ উৎপাদনে। বাকি ৯০ শতাংশ পরিবহন ও কৃষিকাজসহ অন্যান্য খাতে ব্যবহার করা হয়।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, বিদ্যুতের ১০ শতাংশ এবং অন্যান্য খাত থেকে আরও ১০ শতাংশ মোট এই ২০ শতাংশ ডিজেল সাশ্রয় করতে পারলে যে পরিমাণ বিদেশি মুদ্রা সাশ্রয় হবে সেটা অনেক বড় বিষয়। ডিজেল থেকে যে বিদ্যুৎ উৎপাদন হয়, তা ৩৫ থেকে ৪০ টাকার মতো পড়ে প্রতি ইউনিট। কিন্তু গ্রাহক পর্যায়ে বিদ্যুৎ বিক্রি হয় গড়ে প্রায় ৭ টাকায়।


Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     More News Of This Category