June 21, 2024, 7:16 am

এডভোকেট সজলসহ বিএনপির চার আইনজীবীর হাইকোর্টে জামিন

এডভোকেট সজলসহ বিএনপির চার আইনজীবীর হাইকোর্টে জামিন

Spread the love

বাংলাদেশ সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক পদ নিয়ে বিএনপি ও আওয়ামী লীগ সমর্থিত আইনজীবীদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনায় দায়ের করা মামলায় আইনজীবী নেতা কামরুল ইসলাম সজলসহ চার আইনজীবীকে ৬ সপ্তাহের আগাম জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট।

এছাড়াও অপর দুই আইনজীবী আব্দুল কাইয়ুম ও নূরে আলম সিদ্দিকীকে ৬ সপ্তাহের মধ্যে নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এ সময়ের মধ্যে তাদেরকে কোনরূপ হয়রানি না করতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

জামিন পাওয়া চার আইনজীবী হলেন, জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সুপ্রিমকোর্ট শাখার সাধারণ সম্পাদক ও বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য এডভোকেট গাজী মো. কামরুল ইসলাম সজল, জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম সুপ্রিমকোর্ট শাখার সহ-সাধারণ সম্পাদক রাসেল আহমেদ, সুপ্রিমকোর্ট বারের কার্যনির্বাহী সদস্য ও আইনজীবী ফোরামের সদস্য কামরুল ইসলাম এবং তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক সাগর হোসেন।

বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন ও বিচারপতি এস এম মজিবুর রহমান সমন্বয়ে গঠিত একটি হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চ সোমবার ৩০ মে এ আদেশ দেন।

আদালতে জামিন আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন সিনিয়র আইনজীবী এডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন, এডভোকেট এ জে মোহাম্মদ আলী, এডভোকেট জয়নুল আবেদীন, ব্যারিস্টার এএম মাহবুব উদ্দিন খোকন, ব্যারিস্টার মো. রুহুল কুদ্দুস কাজল। রাষ্ট্রপক্ষে জামিনের বিরোধিতা করেন ডেপুটি এটর্নি জেনারেল সারওয়ার হোসেন বাপ্পী।

এর আগে ১৮ মে সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক পদ নিয়ে বিএনপি ও আওয়ামী লীগ সমর্থিত আইনজীবীদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় বিএনপিপন্থি ছয় আইনজীবীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়। রাজধানীর শাহবাগ থানায় সুপ্রিমকোর্ট বারের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মো. রবিউল হাসান এ মামলা করেন। দুই পক্ষের মারামারিতে বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ সমর্থিত এডভোকেট এন আই প্রামাণিক আহত হন।

মামলার আসামিরা হলেন-বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম সুপ্রিমকোর্ট শাখার সাধারণ সম্পাদক ও বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট গাজী মো. কামরুল ইসলাম সজল, বিশেষ সম্পাদক নূরে আলম সিদ্দিকী সোহাগ, সহ-দপ্তর সম্পাদক কাইয়ুম, সহ-সাধারণ সম্পাদক রাসেল আহমেদ, সুপ্রিম কোর্ট বারের কার্যনির্বাহী সদস্য ও আইনজীবী ফোরামের সদস্য কামরুল ইসলাম এবং তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক সাগর হোসেন।

মামলার অভিযোগে বলা হয়েছে, পূর্ব পরিকলনা অনুসারে বুধবার (১৮ মে) সমিতির প্রধান ফটকে প্রতিবাদ সভার নামে বেআইনি সমাবেশ করেন বিএনপিপন্থি আইনজীবীরা। ওই সমাবেশ থেকে গাজী কামরুল ইসলামের নেতৃত্বে বেশ কিছু আইনজীবী ও বহিরাগত ব্যক্তি (আনুমানিক ৫০/৬০জন) দেশীয় অস্ত্রসহ ওপরে উঠে সম্পাদকের কক্ষের সামনে আসেন। তারা সরাসরি সম্পাদকের কক্ষে এবং জানালায় হামলা করেন। তখন সম্পাদক আব্দুন নুর দুলাল কক্ষে তার চেয়ারে বসা ছিলেন। এ সময় আইনজীবী নুরে আলম সিদ্দিকী নেমপপ্লেট খুলে ফেলেন। এছাড়া তারা আওয়ামী লীগ পন্থি আইনজীবী মো. নজরুল ইসলাম প্রামাণিককে আঘাত করেন।

সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির ২০২২-২০২৩ বর্ষের নির্বাচনে সম্পাদক পদে গনণায় মো. রুহুল কুদ্দুস কাজল এগিয়ে থাকলে চূড়ান্ত ঘোষণার পূর্বে অপর প্রার্থী আবদুন নুর দুলালের পক্ষে পুন গনণার দাবী তুলেন। এ নিয়ে দুলালের সমর্থকেরা নির্বাচন সংক্রান্ত সাব কমিটির আহ্বায়ক এ ওয়াই মশিউজ্জামানের সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণ করায় তিনি দায়িত্ব ছেড়ে দেন। ফলে ফলাফল অচলাবস্থা তৈরি হয়। এক পর্যায়ে আওয়ামী লীগ সমর্থিত সুপ্রিমকোর্ট বার এর কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্যগণ এডভোকেট ওয়াজিউল্লাকে প্রধান করে নির্বাচন সংক্রান্ত কমিটি ঘোষণা করেন। এই কমিটি বিএনপি সমর্থক আইনজীবীদের ব্যাপক আপত্তি ও বিক্ষোভের মধ্য দিয়ে সম্পাদক পদে বদ্ধকক্ষে ভোট গনণা করে আবদুন নুর দুলালকে বিজয়ী ঘোষণা করে ফল ঘোষণা করেন। এরই ধারাবাহিকতায় আইনজীবী ফোরাম নেতৃবৃন্দের সঙ্গে বার সম্পাদকের কক্ষের সামনে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে।


Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     More News Of This Category